টিপস

অ্যালোভেরা অয়েল ঘরে বানানোর সহজ কৌশল স্টেপ বাই স্টেপ

অ্যালোভেরা অয়েল বানানোর কৌশল: আমরা সকলেই সব সময় চাই আমাদের ত্বক ও চুল সুন্দর হোক। তাই আমরা নানাভাবে চেষ্টা করতে থাকি কিভাবে ত্বক ও চুল সুন্দর করা যায়। তবে কিভাবে চুল ও ত্বক সুন্দর করা যায় কিভাবে চুল ওঠা বন্ধ করা যায় এসব ভাবতে ভাবতেই অনেক বন্ধুরা অনুসন্ধান করতে থাকে অনলাইনে। ভাবতে থাকে অনলাইনে কোন সমাধান পাওয়া যায় কিনা চুল ওঠা থেকে। অনেকেই আছেন যারা সুন্দরের পূজারী। তারা সবসময় সুন্দরকে বেশি প্রাধান্য দিয়ে থাকে এবং নিজেও অনেক সুন্দর হওয়ার চেষ্টা করে।

অ্যালোভেরা অয়েল বানানোর কৌশল

তাই সুন্দর ত্বকের কথা চিন্তা করে আমরা আজকে আপনাদের সাথে আলোচনা করব ত্বকের জন্য এলোভেরা যতটা উপকারী চুলের জন্য ঠিক ততটাই উপকারী এসব বিষয় নিয়ে। অ্যালোভেরা এমন একটি উপকারী বস্তু যা এন্টি ব্যাকটেরিয়াল উপাদান ও অ্যান্টি অক্সিডেন্ট যা নতুন চুল গজাতে ভীষণভাবে কার্যকরী। অ্যালোভেরা এমন ভাবে মাথার ত্বকের ক্ষত সারাতে সাহায্য করে যা মাথাকে সব সময় সুস্থ রাখে। অনেকে আছে যারা অ্যালোভেরা দিয়ে হেয়ার আলবানী এ সপ্তাহের 2/3 দিন ব্যবহার করেন এবং এর সুফল খুব সহজেই পেয়ে যান। বন্ধুরা আমি আজকে আপনাদের মাঝে তুলে ধরব অ্যালোভেরা অয়েল বানানোর কৌশল, আপনারা কীভাবে এই এলোভেরা দিয়ে হেয়ার অয়েল তৈরি করবেন । আর এই বিষয়টি আপনাদের জানতে হলে এই পোস্টটি শেষপর্যন্ত আপনাদের মনোযোগের সহিত পড়তে হবে। 

অ্যালোভেরা ও নারিকেল তেল

বন্ধুরা অ্যালোভেরা এমন একটি উপাদান যা আপনাদের চুলের গোড়া কে খুব শক্ত ও মজবুত করে এবং চুল পড়া বন্ধ করতে সাহায্য করে। নারিকেল তেল চুলের জন্য ভালো সহজলভ্য এটি একটি টিটমেন্ট করা যা বহুকাল ধরে এদেশে ব্যবহৃত হয়ে আসছে। আপনারা যদি এর মধ্যে পেঁয়াজের রস যোগ করে দেন তাহলে হেয়ার ফলিকল পুনরুজ্জীবিত করবে। নারিকেল তেলের সাথে আপনারা এই অ্যালোভেরা মিশিয়ে বিভিন্ন রকম ভাববে অ্যালোভেরা ওয়েল বানাতে পারবেন। আমি নিচে অ্যালোভেরা জেল কিভাবে বানাতে হয় সে পদ্ধতি গুলো আলোচনা করেছি।

প্রথম পদ্ধতি:

বন্ধুরা প্রথমে আলোচনা করব অ্যালোভেরা হেয়ার অয়েল বানাতে আপনাদের কি কি লাগবে।

অ্যালোভেরার পাতা 2 টি

নারিকেলের তেল 4 টেবিল চামচ

বানানোর পদ্ধতি

প্রথম এলোভেরা পাতা গুলো টুকরো টুকরো করে আপনাদেরকে কেটে নিতে হবে । কেটে নেওয়া টুকরাগুলো একটি কাচের বাটিতে রাখতে হবে। তারপর বড় একটি সাসপেন পানি ভর্তি করে চুলায় বসাতে হবে। এরপর যখন পানিগুলো ফুটানো শুরু করবে তখন অ্যালোভেরার বাতিটা সাবানের ওপর বসিয়ে দিতে হবে। তারপর আপনারা নারিকেল তেল দিয়ে নাড়তে থাকুন। দশ পনের মিনিট পর বাটিতে নামিয়ে নিন এবং এই মিশ্রণটি ঝাকুনির সাহায্যে থেকে আলাদা করে নিতে হবে। এরপর আপনারা এটি ঠাণ্ডা করে নিয়ে এবং চুলে মেয়েকে এক ঘণ্টা রেখে দিন। সবশেষে শ্যাম্পু করে ধুয়ে ফেলতে হবে।

দ্বিতীয় পদ্ধতিঃ

এবারে আপনাদের জানিয়ে দেবো দ্বিতীয় পদ্ধতিতে আপনাদের কি কি উপাদান লাগবে।

অ্যালোভেরার পাতা ১টি।

পেঁয়াজের রস 2 টেবিল চামচ।

নারিকেল তেল আধা লিটার।

কিভাবে তৈরি করবেন

বন্ধুরা অ্যালোভেরার পাতা থেকে সাবধানে জেল বের করতে হবে। কাটা জেল আলাদা করে রাখতে হবে। পূর্বের ন্যায় চুলায় বসিয়ে দিয়ে গরম হয়ে গেলে নারিকেল তেল দিয়ে মাঝারি আঁচে দশ পনের মিনিট জ্বাল দিতে থাকবেন। এরপর এরমধ্যে এলোভেরা জেল ও পেঁয়াজের রস দিয়ে আরো 10 মিনিট জ্বাল দিতে হবে। লক্ষ রাখবেন মিশ্রণটি আস্তে আস্তে লালচে হয়ে আসলে চুলা বন্ধ করে দিন এবং ঠান্ডা করে নিতে হবে। এরপর আপনারা এটা শুষ্ক স্থানে সংরক্ষণ করতে হবে।

বন্ধুরা এটি আপনারা দুই হাতের আংগুলের ডগায় তেল লাগিয়ে ভালো করে ম্যাসাজ করে নিন। এতে আপনাদের স্ক্যাল্পের রক্ত সঞ্চালন বৃদ্ধি পাবে। এভাবে এক ঘন্টা থাকতে হবে এরপর শ্যাম্পূ করে ফেলতে হবে। চাইলে আপনারা রাতের বেলাও তেল ম্যাসেজ করতে পারেন আবার সকালেও ধুয়ে ফেলতে পারবেন।

অ্যালোভেরা, মেথি, কারি পাতা এবং নারিকেল তেল

বন্ধুরা যাদের মাথায় অতিরিক্ত খুশকি থাকে তারা অ্যালোভেরার গ্লাইকপ্রটেইন চুলের খুশকি ও ইরিটেশন দূর করতে সক্ষম হয়। এর মধ্যে প্রচুর পরিমাণে আয়রন ফসফরাস আছে চা কারি পাতা চুলের ঝড় ঝরেপড়া আটকা এবং চুল ঘন করে। মেথি এমন একটি কাজ করে যা নিকোটিক এসিড চুলের সুস্বাস্থ্য নিশ্চিত করে।

কি কি লাগবে

অ্যালোভেরার পাতা 2 টি

মেথি দানা 2 চা চামচ

কারিপাতা ১ মুঠো

নারিকেল তেল 1 কাপ

কিভাবে বানাবেন

বন্ধুরা প্রথমে অ্যালোভেরা পাতা গুলো ভালো করে ধুয়ে পানি ঝরিয়ে নিতে হবে। এরপর পাতাগুলোকে ছোট টুকরো টুকরো করে কেটে নিতে হবে। কিন্তু লক্ষ্য রাখবেন যেন অ্যালোভেরার পাতা গলার ভেতর থেকে যেলটুকু বের হয়ে না যায়। এরপর আপনারা কারি পাতা গুলো ধুয়ে শুকিয়ে নিন। এবার চুলায় বসিয়ে 5/7 মিনিট গরম করে নারিকেল তেল দিয়ে মিক্সট করে নিতে হবে।

এরপর অ্যালোভেরা টুকরাগুলো ঢেলে নাড়তে থাকতে হবে যতক্ষণ না পর্যন্ত নারিকেল তেল এলোভেরা শুকিয়ে যাচ্ছে ততক্ষণ পর্যন্ত নাড়তে হবে। এরপর লক্ষ রাখবেন সুন্দর একটা গন্ধ বের হতে শুরু করেছে মিশ্রণে কারি পাতা গুলো একটু একটু করে নাড়তে থাকতে হবে। এরপরে হালকা সেরভের বন্ধ করুন ঠাণ্ডা করে ছেঁকে নিতে হবে। এটি সপ্তাহে দুই থেকে তিন দিন তেল গোসলের এক ঘণ্টা আগে স্ক্যাল্প ম্যাসাজ করে শ্যাম্পু করে ফেলতে হবে।

অ্যালোভেরা, অলিভ অয়েল, পিপারমেন্ট অয়েল এবং ল্যাভেন্ডার এসেন্স

অ্যালোভেরা ও অলিভ ওয়েলে দুটি মিস করার কারণে আপনাদের কম্বিনেশনের কাজ করবে যা ব্লাড সার্কুলেশন বাড়াবে এবং সেল ড্যামেজ বন্ধ করবে। এছাড়াও এই এটি ব্যবহারের ফলে চুলের স্বাভাবিক রং নষ্ট হয়ে গেলে এই তেল সেই রং পুনরায় ফিরিয়ে আনবে এবং মাথার সুন্দর যোগ করে তুলবে।

কি কি লাগবেঃ

অ্যালোভেরা জেল 2 টেবিল চামচ

অলিভ অয়েল 2 টেবিল চামচ

পিপারমেন্ট তেল 2 থেকে 3 ফোঁটা

ল্যাভেন্ডার এসেন্স ২ থেকে ৩ ফোটা

কিভাবে বানাবেন

বন্ধুরা অ্যালোভেরার জেল বের করে চামচ দিয়ে ভাল করে গলিয়ে নিতে হবে। এরপর অ্যালোভেরা জেল ও অলিভ অয়েল ভালো করে মিশিয়ে নিতে হবে। ল্যাভেন্ডার এস এনজিও পেপার্মিন্ট অয়েল একটি স্বচ্ছ কাঁচের বোতলে সংরক্ষণ করে রাখতে হবে। সপ্তাহে 123 কৌশল এরপর ব্যবহার করে এক ঘণ্টা রেখে শ্যাম্পু করে ফেলতে হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.