খাদ্যসুস্বাস্থ্য

আপনার চোখ ভালো রাখার জন্য যে খাবার গুলো খাবেন

আমাদের চোখ খুব মূল্যবান একটি সম্পদ। তবে যিনি চোখে দেখতে পান না একমাত্র সেই চোখের মূল্যটা বুঝতে পারে। এই সুন্দর পৃথিবীতে দেখার জন্য আমাদের অবশ্যই চোখ ভালো রাখতে হবে। যাদের চোখে সমস্যা এবং চোখে কম দেখতে পায় তারা অবশ্য বোঝে চোখ ভালো রাখার গুরুত্ব টা। আপনার চোখ ভালো রাখার জন্য যে খাবার গুলো খাবেন.

আপনার চোখ ভালো রাখার জন্য যে খাবার গুলো খাবেন
 আপনার চোখ ভালো রাখার জন্য যে খাবার গুলো খাবেন

 

তাই আমাদের অবশ্যই চোখের ব্যাপারে যত্নশীল এবং সচেতন হতে হবে। তবে কিছু প্রাকৃতিক খাবারে রয়েছে চোখের অতুলনীয় উপকারিতা। যা নিয়মিত খেলে আমাদের চোখ সুস্থ এবং সবল থাকবে। এই খাবার গুলো খাওয়ার পাশাপাশি অবশ্যই চোখের যত্ন নিতে হবে এবং চোখ ভালো রাখার ব্যাপারে সতর্ক থাকতে হবে।

পালং শাক

পালং শাক খুবই সুস্বাদু ও মজাদার একটি শাক। আমাদের দেশে সাধারণত পালং শাক শীতের মৌসুমে বেশি পাওয়া যায়। আপনার চোখ ভালো রাখার

চোখের জন্য পালংশাক অত্যন্ত উপকারী একটি শাক। পালং শাকের রয়েছে লুটেইল ও জিয়ানথিন যা আমাদের চোখের জন্য অত্যন্ত উপকারী। লুটেইন আমাদের চোখে পিগমেন্ট তৈরি করতে সহায়তা করে।

এতে সূর্যের নীল রশ্মি থেকে চোখ রক্ষা পায়। বয়স বাড়ার সাথে সাথে আমাদের খুব দুর্বল হয়ে। পিগমেন্ট বৃদ্ধা বয়সে অন্ধত্বকে প্রতিরোধ করে। প্রতিদিন অন্তত আমাদের 100 গ্রাম পালং শাক খাওয়া উচিত।

গাজর

গাজর আমাদের চোখের জন্য খুবই উপকারী। গাজরে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন এ রয়েছে। ফলে গাজর আমাদের চোখ ভালো রাখতে সহায়তা করে। গাজরে রয়েছে বিটা ক্যারোটিন যা আমাদের চোখের জন্য অনেক উপকারী।

গাজর চোখ ভালো রাখার পাশাপাশি ত্বকের জন্য বেশ উপকারী। ত্বক মসৃণ, উজ্জ্বল ও লাবণ্যময় করতে গাজরের তুলনা নেই। তবে চোখ ভালো রাখতে অবশ্যই নিয়মিত গাজর খাবেন।

কমলা লেবু

কমলা চোখের জন্য বেশ ভালো। কমলায় রয়েছে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন সি । আমরা সবাই জানি ভিটামিন-সি আমাদের শরীরের জন্য কতটা প্রয়োজন।

এছাড়াও ভালো রাখার ক্ষেত্রে কমলার গুরুত্ব অপরিসীম। কমলা আপনার চোখ ভালো রাখার পাশাপাশি আপনার শরীরের ভিটামিন সি এর ঘাটতি পূরণ করতে সহায়তা করবে।

মাছ

চোখ ভালো রাখার জন্য ছোট মাছ খেতে পারেন। এক্ষেত্রে বড় মাছ এরচেয়ে ছোট মাছ চোখের জন্য খুবই উপকারী।এছাড়াও ইলিশ মাছে রয়েছে ফ্যাটি এসিড। ফ্যাটি এসিড আমাদের চোখের রেটিনার চারপাশ ভালো রাখতে সাহায্য করে।

তাই চোখ ভালো রাখতে আপনি বড় মাছের পাশাপাশি ছোট মাছ খেতে পারেন। মাছ আপনার চোখ ভালো রাখার পাশাপাশি আপনার শরীলে আমিষের চাহিদা পূরণ করবে। আমিষ আমাদের প্রত্যেকের শরীরের জন্য খুবই দরকারী।

মাংস

চোখ ভালো রাখতে স্তন্যপায়ী প্রাণীদের মাংস উপকারী। কোন স্তন্যপায়ী প্রাণীদের মধ্যে রয়েছে জিংক। জিংক আমাদের চোখ ভালো রাখতে সহায়তা করে। তাই চোখ ভালো রাখার ক্ষেত্রে আপনি গরু এবং ছাগলের মাংস খেতে পারেন।

বাদাম

বাদাম একটি পুষ্টিকর তেলবীজ। ভিটামিন-ই সহ নানা রকম ভিটামিনে ভরপুর বাদাম। বাদাম দৃষ্টিশক্তি হারিয়ে যাওয়া কে প্রতিরোধ করতে সাহায্য করে। তাছাড়া বাদাম আমাদের শরীরের জন্য অনেক উপকারী একটি তেলবীজ।

ডিম

ডিম পুষ্টিগুণে ভরা একটি খাবার। ডিম চোখের দৃষ্টিশক্তির জন্য উপকারী এবং বেশ কার্যকরী। বিশেষ করে ডিমের কুসুম ত্বকের জন্য অত্যন্ত উপকারী। ডিমের কুসুমে রয়েছে চোখ ভালো রাখার নানা রকম উপাদান।

তাছাড়া ডিমের পুষ্টিগুণ এর তুলনা নেই। ডিম আমাদের শরীরের নানা রকম পুষ্টি ঘাটতি পূরণ করতে সহায়তা করে।

কচু শাক

কচু শাক চোখের দৃষ্টিশক্তি ভালো রাখার জন্য একটি অন্যতম শাক। তাছাড়াও কচু শাক খুবই পুষ্টিকর। কচুশাকের রয়েছে খুবই পুষ্টিকর কিছু উপাদান। বিশ্বাস করে ক্যালসিয়াম লৌহ ভিটামিন-সি ভিটামিন-এ সহ নানা রকম পুষ্টি উপাদান।

ভুট্টা

ভুট্টা চোখের জন্য বেশ ভালো। ভুট্টার চোখের ছানি পড়া প্রতিরোধ করতে সহায়তা করে। চোখ সুস্থ রাখার জন্য নিয়মিত ভুট্টা খেতে পারেন।

মিষ্টি আলু

মিষ্টি আলু পুষ্টিগুণে ভরপুর এবং চোখ ভালো রাখার জন্য অনেক উপাদান মিষ্টি আলুর ভিতরে পাওয়া যায়। চোখ সুস্থ ও সবল রাখার জন্য মিষ্টি আলু খাওয়া খুবই জরুরী। মিষ্টি আলুর চোখ ভালো রাখা শরীরের অন্যান্য পুষ্টির ঘাটতি পূরণের জন্য খুবই ভালো।

টমেটো

টমেটো সাধারণত শীতকালে ভালো ফলে। তবে বর্তমানে চোরাই কমবেশি সারা বছরই টমেটো পাওয়া যায়। টমেটো চোখের জন্য যেমন ভালো তেমনি ত্বকের জন্য বেশ উপকারী।

টমেটোতে রয়েছে পটাশিয়াম, ক্যালসিয়াম, ক্রোমিয়াম, ভিটামিন সি, ভিটামিন কে, ভিটামিন-বি, ভিটামিন-সি সহ নানা রকম পুষ্টি উপাদান। চোখ সুস্থ রাখার ক্ষেত্রে অবশ্যই নিয়মিত টমেটো খাবেন।

টমেটো খাওয়ার ফলে সূর্যের ক্ষতিকর রশ্মি থেকে আপনার চোখ সহজেই সুরক্ষিত থাকবে। টমেটোর সালাদ করে খাওয়া যায় আবার রান্না করে খাওয়া যায়। তবে টমেটোর স্বাদ সত্যিই অতুলনীয়। টমেটোতে নানা রকম পুষ্টি উপাদান থাকার কারণে সহজেই চোখ সুরক্ষিত এবং সুস্থ থাকে।

দুধ

দুগ্ধ জাতীয় খাবার চোখে জন্য অনেক উপকারী। এছাড়াও দুধে রয়েছে ফসফরাস, ক্যালসিয়াম, ভিটামিন এ জিংক সহ পুষ্টিসমৃদ্ধ নানা উপাদান। দুধ শরীরের জন্য খুবই প্রয়োজনীয় এবং অনেক উপকারী একটি পানীয়। দুধ চোখের জন্যও অনেক উপকারী একটি পানীয়।

সবুজ শাক

প্রাকৃতিক সবুজ শাক নানা সমস্যার সমাধান। সবুজ শাকসবজি আমাদের শরীরের নানা রকমের সমস্যা সমাধান করে।বিশেষ করে পালং শাক, লালশাক, পুঁইশাক, পুঁইশাক, লাউশাক কুমড়া শাক আমাদের স্বাস্থ্যের জন্য অনেক উপকারী এবং খুবই পুষ্টিকর।

সবুজ শাক প্রচুর অ্যান্টিঅক্সিডেন্টে ভরপুর। এছাড়াও সবুজসাথী হয়েছে ম্যাঙ্গানিজ এর মতো গুরুত্বপূর্ণ উপাদান। যা আমাদের স্বাস্থ্যের জন্য খুবই প্রয়োজনীয় এবং চোখের জন্য অনেক ভালো। তাছাড়া সবুজ শাক আমাদের চোখের নানা রকম শব্দ সমস্যা সমাধান করতে খুবই সহায়ক।

ভিটামিন সি জাতীয় ফল

ভিটামিন সি আমাদের শরীরের জন্য যেমন গুরুত্বপূর্ণ তেমনি চোখের জন্য অনেক উপকারী। বিশেষ করে লেবু কমলা লেবু মাল্টা পেয়ারা ইত্যাদি ভিটামিন সি জাতীয় ফল।

ভিটামিন সি জাতীয় ফল আমাদের চোখের কর্নিয়া এবং লেন্স ভালো রাখে। ভিটামিন সি জাতীয় ফল চোখের বিভিন্ন প্রকার সমস্যা দূর করে।

উপরে দেখানো খাবার গুলো চোখের জন্য অত্যন্ত উপকারী। তাই চোখ ভালো রাখার জন্য এই খাবার গুলো অবশ্যই নিয়মিত খাদ্য তালিকায় রাখার চেষ্টা করবেন। হলে সারা জীবন আপনার চোখ সুস্থ সবল এবং সমস্যামুক্ত থাকবে। তবে চোখের যত্ন নিতে কখনো অবহেলা করবেন না।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *