উৎসব

একুশে ফেব্রুয়ারি বাণী, ছন্দ ও স্লোগান

মহান একুশে ফেব্রুয়ারি হচ্ছে বাঙালি জাতির গৌরবময় জীবনের শক্তি ও গর্বের প্রতীক। আজকের এই দিনটাকে আমরা বাংলার দামাল ছেলেদের দেওয়া বলিদান বাংলা শহীদদের স্মৃতির প্রতি গভীর শ্রদ্ধা জ্ঞাপন করি। মহান শহীদ দিবস এবং আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে একুশে ফেব্রুয়ারিতে সকল শহীদদের আন্তরিক শুভেচ্ছা জানাই। প্রতিবছর একুশে ফেব্রুয়ারী মহান ত্যাগী শহীদদের শ্রদ্ধা জ্ঞাপন ও তাদের উদ্দেশ্যে শহীদ মিনারে ফুল জ্ঞাপন করি এবং এর মাধ্যমে শুরু হয় সারাদিনের বিভিন্ন কর্মসূচি যেমন কবিতা আবৃতি, গান ও বক্তৃতার মধ্য দিয়ে শহীদদের স্মরণ করা হয় এবং শ্রদ্ধা জ্ঞাপন করা হয়। এজন্য অমর একুশে ফেব্রুয়ারি বাঙালি জাতির একটি গর্বের এবং অনুসতান দিবস। একুশে ফেব্রুয়ারি বাণী, ছন্দ ও স্লোগান সহ বিস্তারিত নিচে আলোচনা করা হলো:

তাই আজকে আমরা মহান শহীদদের স্মরণ করার উদ্দেশ্যে একুশে ফেব্রুয়ারির বাণী আপনাদের সামনে উপস্থাপন করব যাতে একুশে ফেব্রুয়ারির মাধ্যমে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালনের লক্ষ্যে মহান শহীদদের স্মৃতির করে রাখা যায় এবং মাগফেরাত কামনা করা যায়। তাহলে চলুন একুশে ফেব্রুয়ারি স্লোগান ও বাণী গুলো যেনে নেওয়া যাক।

একুশে ফেব্রুয়ারি বাণী

একুশে ফেব্রুয়ারি উপলক্ষে কিছু গুরুত্বপূর্ণ বাণী আমরা এই নিবন্ধে প্রদান করছি যা একুশে ফেব্রুয়ারির গুরুত্ব রুপ বহন করে। আপনারা যদি এই সকল বাণী সোশ্যাল মিডিয়া এবং আপনজনদের মাঝে শেয়ার করতে চান তাহলে আমাদের নিবন্ধ থেকে নিতে পারবেন।

ফেব্রুয়ারি মাস এলেই মনে পড়ে একুশ, একটি সংখ্যার শক্তি কতো জেনে বিশ্ব বেহুশ! বাহান্নের ভাষা আন্দোলনে

মিছিলে বাংলা চাই, সালাম, রফিক বরকতের কদর আজো তাই। জীবন দিয়ে প্রতিষ্ঠা পেলো প্রিয় বাংলা ভাষা, মানে মর্যাদায় মোহনীয় অতি মায়ের ভাষা খাসা। বিশ্বের দরবারে বাংলা ভাষা দুর্দান্ত জনপ্রিয় এখন, শান্তির ভাষা বুঝতে পেরেছে ইউনেস্কো স্বীকৃত যখন। পৃথিবীর একমাত্র ভাষা রক্ত প্রাণে রক্ষিত, বাংলা ভাষা কথায় কাজে করো বাংলা সঞ্চিত।

ফেব্রুয়ারি ফেব্রুয়ারি বাংলা ভাষার মাস,

বাংলা আমার মাতৃভাষা মিটায় মনের আশ।

"আমার ভাইয়ের রক্তে রাঙ্গানাে

একুশে ফেব্রুয়ারি

আমি কি ভুলিতে পারি। - আবদুল গাফফার চৌধুরী"


 "একুশে মানে মাথা নত না করা। একুশের দাবি—মাতৃভাষার দাবি, ন্যায়ের দাবি, সত্যের দাবি। - আবুল ফজল"
"আবার ফুটেছে দ্যাখ কৃষ্ণচুড়া থরে থরে শহরের পথে

কেবল নিবিড় হয়ে কখনও মিছিলে কখনও বা

একা হেঁটে যেতে মনে হয়, ফুল নয় ওরা

শহীদের ঝলকিত রক্তের বুদ্বুদ, স্মৃতি-গন্ধে ভরপুর

একুশের কৃষ্ণচূড়া আমাদের চেতনারই রঙ। - শামসুর রাহমান"
"ঘুমাও ঘুমাও ভাইরা মােদের

ঘুমাও মাটির ঘরে,

তােমাদের কথা লিখিয়াছি মােরা।

রক্তে আখর গড়ে। - জসীমউদ্দীন"
"হে বায়ান্নর পদাতিক,

তােমাদের কথাকে কেউ হত্যা করতে পারবে না

তােমাদের দেহ থেকে নিপুণ জল্লাদ

একটি লোমও ফেলতে পারবে না। - আসাদ চৌধুরী"

“২১শে ফেব্রুয়ারি কোনাে বিশেষ দিন, ক্ষণ বা তিথি নয়, একটি জাতির একটা জীবন্ত ইতিহাস। এ ইতিহাস অগ্নিগর্ভ যেন সজীব লাভা স্রাবক আগ্নেয়গিরি, কখনও অন্তর্দাহে গর্জন করছে, আর কখনও চারিদিকে অগ্নি ছড়াচ্ছে। সত্যি এ ইতিহাস মৃত নয় একেবারে জীবন্ত।— ডক্টর মুহাম্মদ এনামুল হক”

একুশে ফেব্রুয়ারি ছন্দ

রফিক, সালাম, বরকত, আরও হাজার বীর সন্তান, করলো ভাষার মান রক্ষা বিলিয়ে আপন প্রান। যাদের রক্তে রাঙানো একুশে ওরা যে অম্লান, ধন্য আমার মাতৃভাষা ধন্য তাঁদের প্রান।

মনে পড়ে ৫২ এর কথা, মনে পড়ে একুশে ফেব্রুয়ারির কথা, যখন হারিয়েছি আমার ভাইদের, দিয়েছি রক্ত ভাষার জন্য।

একুশে ফেব্রুয়ারি ছন্দ কবিতা

একুশ মানে একটি স্বপ্ন, একটি আশা,

একুশ মানে একটি স্বপ্নীল ভালোবাসা।

একুশ একটি প্রদিপের আলো,

একুশ মুছতে পারে সব কালো।

একুশ মানে নতুন এক সম্ভবনা,

একুশ মানে না কোন মানা,

একুশ মানে দুঃসাহসিক জীবন,

যে জীবন আর ভয় পারে না কোন মরন।

পারে শুধুই সামনে এগিয়ে যেতে,

পারে না পিছ পা হতে।

একুশ মানে একটি খোলা মন,

যে কাউকে করতে পারে প্রিয়জ.

একুশ মানে একটি জলন্ত অনল,

যে অনল নিভাবে, নেই এমন কোন জল।

একুশ পারে অসম্ভবকে সম্ভব করতে,

একুশ পারে না বলা কথা বলতে।

যে কথার মাঝে স্বপ্ন লুকিয়ে আছে,

যে স্বপ্ন খুব প্রয়োজন সবার কাছে....

এই লেখাটি আমি লিখেছিলাম(অনেক আগে) আমার একুশতম জন্মদিনে। আমার জন্মও আবার একুশে ফেব্রুয়ারি।


একুশ মানে

একুশ মানে ফাগুন মাসে

ভোর বেলার আলো

একুশ মানে মনের কোণে

বহ্নিশিখা জ্বালো।

একুশ মানে দেশের তরে

ছিনিয়ে আনা ভাষা

একুশ মানে অশ্র“ মুছে

নতুন করে হাসা।

একুশ মানে ভাই হারানো

স্মৃতিকথার দিন

একুশ মানে হƒদ মাজারে

বাজে শোকের বিন।

একুশ মানে মোদের ভাষা

মোদের সেরা জয়

একুশ মানে কাব্য পাঠে

ছন্দ তালে লয়।

একুশ মানে রাজপথের

তাজা শোণিত ঘ্রাণ

একুশ মানে ভাষার তরে

বিলিয়ে দেয়া প্রাণ।

একুশ মানে স্বাধীনভাবে

নতুন পথচলা

একুশ মানে সবার কাছে

মনের কথা বলা।

একুশে ফেব্রুয়ারি স্লোগান

আট চল্লিশে গর্জে উঠা

ভাষা আন্দোলনের পথ মারিয়ে

বায়ান্নের একুশে ফেব্রোয়ারীতে এসে

রফিক, শফিক, জব্বার, বরকতদের

রক্তে রচিত ভাষার স্লোগান ।




মায়ের ভাষার দাবী নিয়ে

গর্জে উঠা একুশের স্লোগান

বাংলার আঙ্গিনা পেরিয়ে

আছরে পরছে বিশ্বজনিন

মিলন মেলায় ।




একুশের ঊষালগ্নে

প্রান্তর থেকে প্রান্তরে

আজ গেয়ে উঠে

আমার ভাইয়ের রক্তে রাঙানো

একুশে ফেব্রুয়ারি

আমি কি তোমায় ভুলিতে পারি।




এ গানের শেষ নেই

প্রজন্ম থেকে প্রজন্মান্তরে গাইবে

বাংলার আকাশ, নদী, খাল-বিল,

গাছ-গাছালি, বনের পাখি, কাঠ-বিড়ালী।




এ গানের মুর্ছনায়

বাংলার কিষান-কিষানির কন্ঠে

ভাসে মুক্তির অভিধান

ছাত্র-শিক্ষক , কবি ও শিল্পীর

রচনায় আসে নতুন নতুন গান

শিল্পীরা আঁকলেন

নাট্যজনেরা লিখলেন

পেশাজীবিগন নেমে এলেন

কৃষক-শ্রমিকের আঙ্গিনায়

ঘরে ঘরে জম্ম নিল

গণঅভ্যুত্থান।




এভাবেই বায়ান্নর পথ বেয়ে

একুশের শহিদের

রক্ত দিয়ে লেখা হলো

অমর সব স্লোগান ।




তোমার ভাষা আমার ভাষা

বাংলা ভাষা বাংলা ভাষা

রাষ্ট্রভাষা বাংলা চাই,

দিতে হবে, দিতে হবে ।




আমার ভাইয়ের বুকে গুলি কেন,

জবাব চাই, জবাব চাই

আমার বোনের বুকে গুলি কেন,

জবাব চাই, জবাব চাই ।




গণআন্দোলনের পথ বেয়ে

শ্লোগান এলো

সোনার বাংলা শ্মশান কেন

জবাব চাই, জবাব চাই

তুমি কে আমি কে

বাঙালী বাঙালী ।




পদ্মা-মেঘনা-যমুনা

তোমার আমার ঠিকানা

পিন্ডি না ঢাকা- ঢাকা ঢাকা

জিন্নাহ মিয়ার পাকিস্তান

আজিমপুরের গোরস্তান ।




বীর বাঙালী অস্ত্র ধর

বাংলাদেশ স্বাধীন কর

বীর বাঙালী অস্ত্র ধর

সোনার বাংলা মুক্ত কর ।




লাখো শহীদের রক্তে আর্জিত

মহান মোদের স্বাধীনতা

আমার প্রিয় মাতৃভূমি

আমার সোনার বাংলা

আমি তোমায় ভালোবাসি ।




ভাষার জন্য ৫২এর

পথ পরিক্রমায়

৭১-এর মুক্তিযুদ্ধের চেতনায়

সংগ্রামী জনতার

ক্লান্তিহীন পথচলায়

সমৃদ্ধ আজ বাংলার পথ-ঘাট

কিষান কিষানির আঙ্গিনা ।




একুশের বুক চিরে জেগে উঠা

বাংগালীর শাশ্বত স্লোগান

দিচ্ছে যোগান

বাংলাকে দাবায়া রাখার শক্তি

আজ আর কারও নেই

ঘরে বাইরে কোথাও না ।

Leave a Reply

Your email address will not be published.