সমস্যা এবং সমাধান

গরম খাবার বা পানীয় তে জিব্বা পুড়ে গেলে কি করবেন?

অনেক সময় আমরা অসচেতন কিংবা ভুলবশত গরম খাবার যেমন চা-কফি পিজ্জা ডাল মুখে দিয়ে ফেলি তাতে জিহ্বা পুড়ে যায়। এর ফলে আমরা খাবার খাওয়া খাবারের স্বাদ কথাবার্তা থেকে শুরু করে আনুষ্ঠানিকভাবে বেদনা অনুভূতি পাই। আমাদের নিত্য দিনের খাদ্য হচ্ছে চা-কফি পিজ্জা যা প্রত্যেকদিন সকালে ঘুম থেকে উঠে আমরা থাকি। অনেকেরই আবার চা-কফি সকালে ঘুম থেকে উঠে না খেলে মাথা ঝিমঝিম কমতেই চায়না। হুট করে তাপমাত্রা সহ্য একটু বেশি হয়ে গেলে জিহ্বা কিংবা ঠোঁট এ ফোসকা পড়ে যায়। হুট করে আপনার এরকম হলে কি করবেন?

তাহলে আজকে জেনে নেওয়া যাক দূর্ঘটনাবশত গরম খাবার খেয়ে জিব্বা পুড়ে গেলে কি করতে হবে। অনেকেরই গরম কিছু লেগে পুড়ে গেলে বরফ লাগিয়ে দেয় তবে বরফ লাগিয়ে সাময়িকভাবে স্বস্তি বোধ করলে পরে সেটি হিতে বিপরীত হয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা থাকে। তাই আজকে আমি আপনাদেরকে সরবরাহকৃত ও প্রমান সহ নিয়মাবলী আপনাদের জানাবো।

গরম খাবারে জিব্বা পুড়ে গেলে করণীয়

গরম খাবারে জিব্বা পুড়ে গেলে করণীয়

গরম খাবারে জিব্বার পড়ে গেলে প্রথমেই ধৈর্য ধারণ করতে হবে। কারণ হুট করে কোন কিছু করতে গেলে সেটি বিপরিত হতে পারে।

জিব্বাকে দ্রুত শীতল করুন: জিহ্বা পুড়ে গেলে তাৎক্ষণিকভাবে পানি কুলি করবেন, চিনি দিয়ে পানি লাগিয়ে দিতে ও পারেন তাহলে আপনার জিহ্বা ঠোঁট অনেকটা আরাম হবে।

ঝাল খাবার এড়িয়ে চলুন: ক্ষতস্থানে ঝাল মসলাজাতীয় খাবার ছেলে অস্বস্তি বোধ হয় তাই ঘা শুকানোর আগ পর্যন্ত ঝাল মসলা জাতীয় খাবার না খাওয়া অনেক ভালো।

জিব্বা ব্রাশ করা থেকে বিরত থাকুন: গরম কিছু খাওয়ার ফলে যদি আপনার জিব্বা পুড়ে যায় তাহলে কোনোভাবেই ব্রাশ করবেন না। ট্রিটমেন্ট করার পরে সুস্থ হয়ে গেলে তখন ব্রাশ করা যাবে ।

দুধ পান করুন: দুদ্ধ জাতীয় পদার্থ দই পনির চানা ইত্যাদি খাবার খেলে পোড়া জায়গায় আরাম হবে কারণ ডাক্তারের পরামর্শ অনুযায়ী দুধ দই ঠান্ডা তাই ওরা জায়গায় অনেকটা আরাম হবে।

লবণ পানি দিয়ে কুলি করুন: জিহ্বা পুড়ে গেলে লবণ পানি দিয়ে কুলি করলে অনেকটা আরাম হয়।

ব্যথার ওষুধ খান: যদি আপনার মনে হয় পোড়া জিহ্বার জন্য ঔষধ খাওয়া প্রয়োজন হলে ডাক্তারের পরামর্শ অনুযায়ী আপনারা ঔষধ খেতে পারেন। এছাড়া কিছু অয়েন্টমেন্ট থাকে যেগুলো আপনারা লাগালে ক্ষত সেরে যেতে বেশি সময় লাগবে না।

Leave a Reply

Your email address will not be published.