টিপসস্বাস্থ্য

চুলকানি দূর করার সহজ উপায় জেনে নিন

চুলকানি দূর করার উপায়-সুপ্রিয় ভিজিটর বন্ধুরা আপনাদের সবাইকে জানাই স্বাগত আমাদের ওয়েবসাইটে ভিজিট করার জন্য। বন্ধুরা অনেক সময় অ্যালার্জি ছাড়াও হঠাৎ করে হাত-পায়ে চুলকানি শুরু হয়ে যেতে পারে। এটি খুব সাধারণ একটি ব্যাপার মনে হলেও কিন্তু এই ব্যপারটি বিরক্তি পর্যায়ে চলে যায় যখন চুলকানি থামতে চায় না। আর বার বার চুলকাতে থাকে। সংবেদনশালী ত্বক যাদের তারা চুলকাতে চুলকাতে লাল করে ফেলে। বন্ধুরা এই চুলকানির হাত থেকে রক্ষা পাওয়ার জন্য অনেকেই বিভিন্ন মলম ব্যবহার করে থাকেন। কিন্তু মলম ব্যবহারে ত্বকের ক্ষতি হতে পারে। তার চেয়ে যদি ঘরোয়া উপায়ে ত্বকের চুলকানি দূর করা যায়, তা যেমন নিরাপদ তেমনি অনেক বেশি কার্যকর। তাহলে চলুন বন্ধুরা জেনে নেওয়া যাক ঘরোয়া উপায়ে ত্বকের চুলকানি দূর করার উপায়।

জেনে নিন চুলকানি দূর করার উপায়, চুলকানি হল এলাকা আঁচড়াতে চাওয়ার অনুভূতি। অ্যালার্জি, শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতার সমস্যা, ওষুধের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া বা অন্য কোনো অন্তর্নিহিত স্বাস্থ্য সমস্যার কারণে চুলকানি হতে পারে। চুলকানি বিভিন্ন ধরনের হতে পারে। তাদের চেহারা দেখে বা তাদের কারণ জেনে সহজেই চিহ্নিত করা যায়। সবচেয়ে সাধারণ কারণগুলি হল ফুসকুড়ি, আমবাত, ছত্রাক সংক্রমণ এবং কোন পোকামাকড়ের কামড়। শুষ্ক ত্বকের মানুষদের চুলকানি বেশি হয়। এর কিছু চাক্ষুষ উপসর্গ রয়েছে, যেমন জায়গাটি লাল হয়ে যাওয়া, প্রদাহ, ফোলাভাব এবং ফোসকা হওয়া। চুলকানি সাধারণত কোনো গুরুতর উপসর্গ নয়, তবে এটি দীর্ঘদিন ধরে চলতে থাকলে, চুলকানি কিছু গুরুতর অসুস্থতার লক্ষণ হতে পারে, যেমন কিডনি বা লিভারের সমস্যা। একবার চুলকানির কারণ শনাক্ত হয়ে গেলে, চুলকানির জন্য অনেক কার্যকরী চিকিত্সার বিকল্প রয়েছে যা শুরু করা যেতে পারে। এর মধ্যে রয়েছে টপিকাল মলম এবং ভোজ্য। ঘরোয়া প্রতিকারও সাময়িক উপশম দিতে পারে।

আরো পড়ুন: শীতে ত্বকের যত্নে ঘরোয়া উপায়

ছেলেদের ত্বকের উজ্জ্বলতা বৃদ্ধির উপায়

চুলকানি দূর করার সহজ উপায়

১। নারকেল তেল: পাঠক বন্ধুরা নারকেল তেল কিন্তু আমাদের ত্বকে ব্যবহারের জন্য সবচেয়ে নিরাপদ একটি পণ্য। যে কোন প্রকার চুলকানি, পোকার কামড় বা অন্য কোন কারণে ত্বকে চুলকানি হলে যেখানে চুলকাবে সেখানে নারকেল তেল দিয়ে দিতে পারেন। যদি সম্পূর্ণ শরীরে চুলকানি হয় তবে পুরো শরীরে নারকেল তেল মাখতে পারেন। আপনারা চাইলে কুসুম গরম পানিতে নারকেল তেল মিশিয়েও গোসলও করে ফেলতে পারেন।

২। পেট্রোলিয়াম জেলি: বন্ধুরা আপনারা যদি সেনসিটিভ ত্বকের অধিকারী হয়ে থাকেন তবে পেট্রোলিয়াম জেলি ব্যবহার করতে পারেন। এর কোন পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া নেই। শরীরের কোন অংশে চুলকানি হলে আপনারা পেট্রোলিয়াম জেলি ব্যবহার করতে পারেন। এটি সবার ঘরেই থাকে, ফলে যেকোন সময়ই আপনারা এটি ব্যবহার করতে পারবেন।

৩। বেকিং সোডা: বন্ধুরা বিরক্তিকর চুলকানি প্রতিরোধ করার জন্য বেকিং সোডা অনেক বেশি কার্যকরী। প্রথমে পানি ও বেকিং সোডা দিয়ে পেষ্ট তৈরি করে নিতে হবে। এক অংশ পানির মধ্যে ৩ অংশ বেকিং সোডা দিতে হবে। তারপর চুলকানির জায়গায় এই পেষ্টটি লাগাতে হবে। দেখবেন চুলকানি অনেক কমে গেছে। বেকিং সোডা দিয়ে আপনারা গোসলও করতে পারেন। এক্ষেত্রে বড় এক বালতি পানিতে ১/২ কাপ বেকিং সোডা মেশাতে হবে। বেকিং সোডা মেশানো পানিতে কমপক্ষে ৩০ মিনিট শরীর ভিজিয়ে রাখার পর শরীর পানি দিয়ে না ধুয়ে শুকিয়ে ফেলতে হবে। এতে পুরো শরীরের চুলকানি দূর হয়ে যাবে।

৪। অ্যালোভেরা: বন্ধুরা আমরা সবাই জানি সৌন্দর্য চর্চায় অ্যালোভরার উপকারিতার কথা। চুলকানি প্রতিরোধ করতেও কিন্তু অ্যালোভরার অনেক কার্যকরী। একটি তাজা অ্যালোভেরা পাতা থেকে রস বের করে চুলকানির স্থানে আলতো ভাবে লাগান। দেখবেন চুলকানি দ্রুত কমে যাবে।

৫। লেবু: ভিজিটর বন্ধুরা ভিটামিন সি সমৃদ্ধি ফল যেমন লেবুতে আছে ব্লিচিং উপাদান যা ত্বকের চুলকানি রোধ করে থাকে। ত্বকের যে স্থানে আপনাদের চুলকানি অনুভূত হচ্ছে সেস্থানে লেবুর রস লাগিয়ে শুকিয়ে নিলে কিছুক্ষণের মধ্যে দেখবেন আপনাদের চুলকানি গায়েব হয়ে যাচ্ছে।

চুলকানি দূর করার সহজ উপায় জেনে নিন

চুলকানি এর চিকিৎসা – Treatment of Itching in Bengali

চুলকানির কারণ নির্ণয় করার পরে, এর চিকিত্সা নিম্নলিখিত ধরণের হতে পারে:

কর্টিকোস্টেরয়েড ক্রিম
এই ওষুধযুক্ত ক্রিমগুলির ত্বকে প্রশান্তিদায়ক এবং নিরাময় প্রভাব রয়েছে। এই ক্রিমগুলি ত্বককে শুষ্ক করে না, এইভাবে চুলকানি কমাতে সাহায্য করে। এগুলিতে সাধারণত 1% হাইড্রোকর্টিসোন থাকে। ডাক্তারের পরামর্শ এবং প্রেসক্রিপশন ছাড়া এই স্টেরয়েডযুক্ত ক্রিম ব্যবহার করবেন না।

ক্যালসিনুরিন ইনহিবিটরস
এই ওষুধটি নির্দিষ্ট এলাকায় চুলকানির চিকিৎসার জন্য ব্যবহার করা যেতে পারে।

এন্টিডিপ্রেসেন্টস
অ্যান্টিডিপ্রেসেন্টগুলি শরীরের হরমোনগুলিকে প্রভাবিত করে এবং তাই চুলকানি থেকে মুক্তি পেতে সহায়তা করে।

জেলস
একটি সাধারণ অ্যালোভেরা জেল একটি ময়েশ্চারাইজার হিসাবে সুপারিশ করা যেতে পারে কালশিটে ত্বক প্রশমিত করতে এবং শুষ্ক ত্বক নিরাময় করতে।

অ্যান্টিহিস্টামাইনস
অ্যান্টিহিস্টামিনযুক্ত ওষুধ (সাধারণত খাবারের ওষুধ) অ্যালার্জি কমাতে খুবই সহায়ক। এগুলি প্রদাহ বন্ধ করে এবং তাই চুলকানি। চুলকানি দূর করার উপায়

আলো চিকিৎসা
হালকা থেরাপি চুলকানি নিয়ন্ত্রণ করার জন্য UV আলোর একটি নির্দিষ্ট তরঙ্গদৈর্ঘ্য ব্যবহার করে। এই পদ্ধতিটিকে ফটোথেরাপিও বলা হয়। দীর্ঘস্থায়ী ফলাফল পেতে এই চিকিত্সাটি কয়েকবার পুনরাবৃত্তি করতে হবে।

আলো চিকিৎসা

স্বাস্থ্যের অন্তর্নিহিত অবস্থার চিকিৎসা

কিডনি এবং লিভার বা রক্তে শর্করার মাত্রা সম্পর্কিত স্বাস্থ্যের অবস্থার চিকিত্সা করা চুলকানি নিয়ন্ত্রণে সহায়তা করতে পারে। রোগের চিকিৎসা করা হলে এর লক্ষণগুলোও চলে যায়। জীবনধারা পরিবর্তন

জীবনধারা কিছু পরিবর্তন করে চুলকানি নিয়ন্ত্রণ করা যেতে পারে:

চুলকানি সৃষ্টি করে এমন সব পদার্থ এড়িয়ে চলুন। চুলকানি জায়গায় ঔষধযুক্ত মলম লাগান। এগুলো ওষুধের দোকানে সহজেই পাওয়া যায়। এই মলমগুলি শুষ্ক এবং কালশিটে ত্বককে প্রশমিত করে।

আক্রান্ত স্থানে স্ক্র্যাচ করবেন না। যদি এটি একটি ছত্রাক সংক্রমণ হয়, তাহলে মাথার ত্বক ক্ষতিগ্রস্ত হবে এবং সংক্রমণ অন্যান্য এলাকায় ছড়িয়ে পড়বে। চুলকানির সময় নখের নিচের ব্যাকটেরিয়া চুলকানির জায়গায় গিয়ে প্রদাহ বাড়িয়ে দেয়।
মানসিক চাপ কমাতে. মানসিক চাপ বেড়ে গেলে, আমাদের শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা সক্রিয় হয়ে যায় এবং চুলকানি এবং অন্যান্য অ্যালার্জির কারণ হয়।

অত‌এব বন্ধুরা আমরা আশা করছি উপরের টিপস গুলো অনুসরণ করলে আপনারা উপকৃত হবেন, আমাদের আজকের টিপস আপনাদের কেমন লেগেছে অবশ্যই আমাদের কমেন্ট বক্সে জানাবেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published.