ফিটনেসসুস্বাস্থ্য

দ্রুত ওজন কমানোর সহজ উপায় গুলো

দ্রুত ওজন কমানোর সহজ উপায়: অতিরিক্ত মেদ এবং ওজন নিয়ে বর্তমানে প্রায় অনেকেই সমস্যায় ভুগছেন। তবে অতিরিক্ত ওজন আসলেই একটি বিরক্তিকর সমস্যা। এটা যতটাই বিরক্তিকর তার থেকেও বেশি স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর। অতিরিক্ত মেদ ও ওজন থাকলে শরীরে নানা রকম রোগ বাসা বাঁধে।

দ্রুত ওজন কমানোর সহজ উপায় গুলো
দ্রুত ওজন কমানোর সহজ উপায় গুলো

এছাড়াও শরীরের সৌন্দর্য নষ্ট করার ক্ষেত্রে অতিরিক্ত ওজন ও মেদ বিশেষ ভাবে দায়ী। পুরুষ মহিলা প্রত্যেকের ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখা অত্যন্ত জরুরী।

 

কিন্তু আমাদের দৈনন্দিন জীবনের নানা কাজে ব্যস্ত থাকার কারণে ব্যায়াম করা বা নিজের ওজন নিয়ে কোনো পদক্ষেপ নেয়ার মত সময় হয়ে ওঠে না। তবে যত ব্যস্ততায় থাকুক আমাদের শরীর অবশ্যই সুস্থ রাখতে হবে এবং পাশাপাশি ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখতে হবে।

 

 

প্রচুর পরিমাণে পানি পান করা

পানি শরীরের জন্য কতটা গুরুত্বপূর্ণ তার থেকে বেশি প্রয়োজনীয়। পরিমিত পরিমাণে পানি পান করলে শরীরে পানির ঘাটতি দূর হয়। এবং পানি পান করার ফলে পেট ভরা ভরা মনে হয়।

 

ফলে অতিরিক্ত খাদ্য খাওয়ার রুচি কমে যায়। এজন্য প্রতিদিন কমপক্ষে 10 থেকে 12 গ্লাস পানি পান করা উচিত। ছাড়াও পানি আমাদের শরীরকে সুস্থ রাখতে এবং সতেজ রাখতে সহায়তা করে।

 

বাহিরের খাবার পরিত্যাগ করুন

বাহিরের ক্ষতিকর ফাস্টফুড এবং তৈলাক্ত খাবার একেবারেই পরিত্যাগ করতে হবে। কারণ তৈলাক্ত খাবার খাওয়ার ফলে খুব দ্রুত ওজন বেড়ে যায় এবং মেদ ও চর্বি বেড়ে যায়।

 

এজন্য বাহিরে খাবার খাওয়া বন্ধ করতে হবে। এবং প্রাকৃতিক খাবার বিশেষ করে ফলমূল শাকসবজি ও বাসার স্বাস্থ্যসম্মত খাবার খাওয়ায় অভ্যস্ত হয়ে উঠতে হবে।

 

শর্করা জাতীয় খাবার বাদ দিতে হবে

অতিরিক্ত মিষ্টি এবং চিনিজাতীয় খাবার খাওয়া বন্ধ করতে হবে। এছাড়াও রুটি ও ভাতের রয়েছে উচ্চমাত্রায় শর্করা। তাই এগুলো কম খেতে হবে সম্ভব হলে খাওয়া বন্ধ রাখতে হবে।

 

শর্করা ও চিনি জাতীয় খাবার দ্রুত ওজন বৃদ্ধি করে। তাই এসব খাবার খাওয়া বন্ধ রাখলে আপনার ওজন দ্রুত কমবে।

 

প্রাকৃতিক ফলমূল ও সবজি খাওয়া

সবজি ওজন কমানোর ক্ষেত্রে সাহায্য করে। সবুজ শাক সবজি আপনার দেহের মেদ চর্বির সমস্যা সৃষ্টি করে না। তাই দ্রুত ওজন কমানোর ক্ষেত্রে আপনার জন্য সবুজ শাক সবজি এবং ফলমূল আপনার জন্য অত্যন্ত উপকারী। কারণ সবজিতে রয়েছে প্রচুর পুষ্টি সমৃদ্ধ উপাদান ও অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট।

 

প্রোটিনযুক্ত খাদ্য গ্রহণ করুন

দ্রুত ওজন কমানোর জন্য আপনি খাওয়া-দাওয়া একেবারে বাদ দিলে অবশ্যই অসুস্থ হয়ে পড়বেন। তাই আপনার প্রতিদিনের খাদ্য তালিকায় প্রোটিন যুক্ত খাদ্য থাকা অত্যন্ত জরুরী।

 

এতে আপনার শরীরের পেশী গুলো সুস্বাস্থ্যবান থাকবে। প্রোটিন সমৃদ্ধ খাদ্য খাওয়া বাদ দিলে আপনার শরীরের ওপর খারাপ প্রভাব পড়বে এমনকি শরীর অসুস্থ হয়ে পড়ার আশঙ্কা থাকবে।

 

প্রোটিন যুক্ত খাবার হিসেবে মাছ, মাংস, ডাল, দুধ, ডিম ইত্যাদি খাবার খেতে পারেন। তবে এক্ষেত্রে অবশ্যই লক্ষ্য রাখবেন এগুলো যেন বেশি পরিমাণে হয়ে না যায়। তাহলে আপনার ওজন কমা তো দূরের কথা উল্টো বাড়তে শুরু করবে।

 

খাবার খাওয়া একেবারেই বাদ দেবেন না

মনে রাখবেন, না খেয়ে কখনোই ওজন কমানো সম্ভব নয়। তবে বেশির ভাগ লোকই এই ভুলটা করে থাকে। ওজন কমাতে গিয়ে খাওয়া-দাওয়া একদম ছেড়ে দিয়ে শরীর খারাপ করে ফেলে। 

 

আপনি খাবার খাবেন অবশ্যই তবে আগে যতটা খেতেন তার থেকে কমিয়ে। ভাগ করে অর্ধেক পরিমাণে খেতে পারেন অথবা কিছুক্ষণ পর খাবারের বাকি অংশ আবার খেতে পারেন।

 

আয়নার সামনে বসে খেতে পারেন

শুনে একটু অবাক লাগলেও কথাটা সত্যি। আসলে আয়নার সামনে বসে খাবার খেলে নিজের ওজন কমানোর বিষয়টা বারবার মনে আসে। এর কারণ যখনই আপনি আয়নায় নিজেকে দেখবেন তখনই আপনার স্থূল অথবা মোটা শরীর কমানোর চিন্তা মাথায় আসবে।

 

এতে ওজন কমানোর বিষয়টি আপনার বারবার মনের ভিতর থাকবে এবং খাদ্য গ্রহণে আপনি অনেকটাই সচেতন হয়ে যাবেন। এক্ষেত্রে আমার সামনে বসে খাবার খাওয়া টা অনেক গবেষণায় ওজন কমানোর ক্ষেত্রে কার্যকরী পদ্ধতি হিসেবে প্রমাণিত হয়েছে।

 

কমপক্ষে কিছু সময় হাঁটুন

ওজন কমানোর ক্ষেত্রে সব নিয়ম মানার পাশাপাশি অবশ্যই দিনে কিছুটা সময় হাঁটতে হবে। এতে আপনার ওজন কমানোর ক্ষেত্রে যেমন উপকারী তেমনি হৃদরোগের ঝুঁকি কমাতে সহায়তা করে। দিনে কিছুটা সময় হাটাহাটি করলে মন অনেকটাই ফ্রেশ থাকে এবং দুশ্চিন্তা ও বিষণ্নতার ভাব কমে যায়।

 

অবশ্যই ব্যায়াম করতে হবে

একটু কষ্টকর বিষয় তাই মনে হচ্ছে। একেবারেই না ব্যায়াম করা তেমন কোন কষ্ট করুন বিষয় নয়। দ্রুত ওজন কমানোর জন্য আপনাকে অবশ্যই সহজ কয়েকটি ব্যায়াম করতে হবে।

 

তবে ভয় পাবেন না ব্যায়াম গুলো একদমই কষ্টকর নয়। আপনি নিয়মিত করার ফলে আপনার শরীর অনেকটা শক্তিশালী এবং সুস্থ থাকবে।

আরো পড়ুন….

 

পাশাপাশি আপনার শরীরের অনেক উপকার হবে এবং দ্রুত ওজন কমানোর ক্ষেত্রে অত্যন্ত ভালো ভূমিকা রাখবে। তাই ওজন কমানোর জন্য অবশ্যই ধৈর্য ধারণ করে নিয়মিত ব্যায়াম করুন এবং উপরে নিয়মগুলো মেনে চলুন।

 

ব্যায়াম করার পাশাপাশি আপনার পছন্দের খেলা টি খেলতে পারেন। অবশ্যই শারীরিক পরিশ্রম হয় এমন কিছু বেছে নিতে হবে। বিশেষ করে ভলিবল, ফুটবল, ক্রিকেট এই জাতীয় খেলাধুলা।

 

আপনি অবশ্যই জানেন খেলাধুলা আপনার শরীরের জন্য অত্যন্ত উপকারী। তাই ওজন কমানোর ক্ষেত্রে নিয়মিত খেলাধুলা করা খুবই ভালো।

Leave a Reply

Your email address will not be published.