health-tips

ফেসিয়াল কি? ফেসিয়াল করার নিয়ম ? ফেসিয়ালের উপকারিতা ও অপকারিতা

মানুষ সুন্দরের পূজারী। সুন্দর সবাই পছন্দ করে সেই সুন্দর কে ধরে রাখার জন্য তার বিশেষ যত্ন ও খেয়াল রাখা দরকার। ভাই আজকে এই পোস্টে আপনারা জানতে পারবেন ফেসিয়াল ফেসিয়াল করার নিয়ম ফেসিয়ালের উপকারিতা ও অপকারিতা।

শুরুতে জেনে নেয়া যাক ফেসিয়াল এর আগের গুরুত্বপূর্ণ বিষয়গুলো

  • ফেসিয়াল করার পূর্বে অবশ্যই বিশেষজ্ঞদের পরামর্শ নেবেন তারা বলতে পারবে কোন ত্বকের জন্য কোন ফেসিয়াল গুরুত্বপূর্ণ।
  • আপনাদের যদি সুগন্ধিযুক্ত কোন ফেসিয়াল অ্যালার্জি থাকে তাহলে সেটি পরিহার করবেন এবং সুগন্ধি বিহীন ক্লিনজিং ক্রিম এর মাধ্যমে ফেসিয়াল করবেন।
  • তবে ফেসিয়ালের জন্য প্রাকৃতিক উপাদান সমৃদ্ধ বেশি বেশি কার্যকর।
  • ত্বক পরিষ্কার করার জন্য বেসিক ফেসিয়ালটি আপনারা যথাসম্ভব বাড়িতে বসে নিতে পারেন।
  • অ্যাডভান্স ফেসিয়ালগুলো মাসে একবারের বেশি করবেন না এতে ত্বকের সমস্যা হয়ে যেতে পারে।।
  • 18 বছরের নিচে ফেসিয়াল করা মোটেই ঠিক নয় তাই 18 বছরের উর্ধ্বে হলে ফেসিয়াল করবেন না হলে করবেন না।

ফেসিয়াল কি

ফেসিয়াল হচ্ছে ত্বকের লোমকূপ এ জমে থাকা ময়লা তেলতেলে ভাব ও ত্বকের হারানো সতেজতা কে ফিরিয়ে আনার পদ্ধতি। ফেসিয়ালের মাধ্যমে ত্বকের ময়লা দূর হয় সতেজতা ফিরে আসে নতুন করে কোষ জন্মাতে সহায়তা করে।

ফেসিয়াল করার নিয়ম

ঘরোয়া পদ্ধতিতে

  • এক চামচ চিনি ,এক চামচ মধু এক চামচ দুধ,
  • এক চামচ চালের গুঁড়া 1 চামচ মধু এক চামচ জলপাই তেল
  • এক চামচ বেসন 1 চামচ লেবুর রস এক চামচ পানি।

এই তিনটি পদ্ধতির একটি উপকরণ মিশিয়ে মুখে আলতো করে ঘষে ঘষে 10 থেকে 15 মিনিট রেখে কুসুম কুসুম পানিতে ধুয়ে ফেলুন নরম কাপড় দিয়ে আস্তে আস্তে মুছুন। হাতের আঙ্গুল দিয়ে আস্তে আস্তে মুখে মেসেজ করলে মুখে রক্ত সঞ্চালন হয় ও ত্বকের উজ্জ্বলতা ভাব ফুটে উঠে।

প্রয়োজনীয় উপকরণ

মুখের ভালো ময়েশ্চারাইজার আনতে রোদে পোড়া দাগ দূর করতে এলোভেরা জেল খুবই উপকারী এই অ্যালোভেরা জেল মুখের হারানো উজ্জ্বলতা ফিরিয়ে আনতে সক্ষম। ফেসিয়ালের পর কমপক্ষে 12 ঘন্টা অ্যালকোহলযুক্ত বা কেমিক্যালযুক্ত ক্রিম ব্যবহার করবেন না এতে করে ত্বকের ক্ষতি হতে পারে বিশেষ করে মেকআপের জন্য নানা রকমের ফুল দিয়ে তৈরি হয় এতে ত্বক নষ্ট হওয়ার সম্ভাবনা অনেকটাই প্রতি মাসে অন্তত একবার করে আপনার মুখ ফেসিয়াল করে নিয়েন তাহলে মুখের উজ্জ্বলতা বজায় থাকবে
ফেসিয়ালের উপকারিতা ও অপকারিতা
ফেসিয়াল করলে মুখের অনাকাঙ্ক্ষিত দা সিম্পেল তিল এগুলো চলে যায় আবার যদি নতুন করে কোনো পিম্পেল উঠে সেগুলো নিয়ন্ত্রণে থাকে। আপনারা হয়তো জানেন ময়লা জমলে পিম্পেল দেখা দেয় তাই পিমপেলের জন্য ফেসিয়াল করা গুরুত্বপূর্ণ।

অপকারিতা

কিছু কিছু ফেসিয়ালে অতিমাত্রায় কেমিক্যাল মেশানো থাকে যা ত্বকের উপর ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে যায়। ফেসিয়ালে অতি ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র ব্যবহার করা হয় যা মুখ দিয়ে ত্বক থেকে দূষিত রক্ত বের করে দেয়া হয় যেগুলো ত্বকের লোমকূপের থাকা ময়লা গুলো পরিষ্কার করে নিয়ে আসতে সক্ষম কিন্তু তা পরবর্তীতে ক্ষতের সৃষ্টি করতে পারে। এতে নতুন করে কোন জন্মাতে পারে না।

সতর্কতাঃ

ত্বকের প্রকৃতি বিবেচনা করে মাসে একবার করে ফেসিয়াল করবেন। ত্বকের যাতে কোনরকম ক্ষতি না হয় সেদিকে ভেবে প্রাকৃতিক ফেসিয়াল নেওয়ার চেষ্টা করবেন ফেসিয়ালের নিয়ম মেনে চলবেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published.