খাদ্যসুস্বাস্থ্য

ভিটামিন সি সমৃদ্ধ কিছু ফল

ভিটামিন সি আমাদের শরীরের জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ। ভিটামিন-সি আমাদের দেহের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করে।আমাদের সুস্থ থাকার জন্য ভিটামিন সি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। ভিটামিন সি ত্বক, চুল, দাঁত ও হাড় ভালো রাখতে সহায়তা করে।

ভিটামিন সি সমৃদ্ধ কিছু ফল
 ভিটামিন সি সমৃদ্ধ কিছু ফল


ভিটামিন সি এর অভাব দেখা দিলে শরীরের বিভিন্ন প্রকার সমস্যার সৃষ্টি হয়। তাই প্রতিদিন আমাদের ভিটামিন সি সমৃদ্ধ কোন না কোন ফল অবশ্যই খেতে হবে। এছাড়াও অনেক বড় বড় রোগ প্রতিরোধ এর ক্ষেত্রে ভিটামিন সি সমৃদ্ধ ফল গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে।


ভিটামিন সি জাতীয় ফলমূল এ রয়েছে আন্টি অক্সিডেন্ট যা শরীরের ক্ষতিকর প্রভাব থেকে রক্ষা করে এবং রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়।



বিশেষজ্ঞদের মতে একজন পুরুষের দৈনিক 110 মিলিগ্রাম ভিটামিন-সি খেতে হবে। এবং মহিলা 95 মিলিগ্রাম ভিটামিন-সি প্রয়োজন।


তবে যুক্তরাষ্ট্রের কিছু বিশেষজ্ঞদের মতে একজন প্রাপ্তবয়স্ক ব্যক্তি প্রতিদিন 400 মিলিগ্রাম ভিটামিন সি সমৃদ্ধ খাবার খাওয়া প্রয়োজন।

তবে আমাদের দেশে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন সি সমৃদ্ধ ফল রয়েছে।

আমলকি

আমলকিতে রয়েছে উচ্চমাত্রায় ভিটামিন ‘সি’ যা শরীরের জন্য খুবই উপকারী। আমরা শরীরের পাশাপাশি পাশাপাশি আমাদের চুলের জন্য খুবই উপকারী। আমলকি আমাদের চুল বৃদ্ধি এবং মজবুত হতে সাহায্য করে।


এছাড়াও চুলের খুশকি দূর করতে আমলকি অবদান অতুলনীয়। পেটের  বদহজম দূর করতে আমাদেরকে সহায়তা করে।আমলকি মুখের রুচি বাড়াতে সহায়তা করে। অনেকে আবার আমলকি আচার করে খায়।


নিয়মিত আমলকির রস এবং মধু একসাথে মিলিয়ে খেলে ত্বকের কালো দাগ সহজে দূর হয়ে যায়। সাথে সাথে ত্বকের লাবণ্য এবং উজ্জ্বলতা বৃদ্ধি করতে সাহায্য করে।


যারা দুশ্চিন্তাগ্রস্ত এবং মানসিক ভাবে ডিপ্রেশনে থাকেন আমলকি তাদের মানসিক চাপ এবং দুশ্চিন্তা কমাতে সহায়তা করবে।তাছাড়াও ভালো ঘুমের জন্য আমলকি খুবই উপকারী যাদের অনিদ্রা সমস্যা রয়েছে তাঁরা নিয়মিত আমলকি খেতে পারেন।


আমলকি শরীরের শক্তি যোগাতে সহায়তা করে এবং কর্মক্ষমতা বৃদ্ধি করে। মস্তিষ্ক সচল রাখে এবং দেহের পেশীগুলো কে মজবুত রাখে। তাছাড়া আমরা কি ফুসফুস এবং হৃদপিন্ডের জন্য অনেক উপকারী। আমলকি ডায়াবেটিস প্রতিরোধে খুবই সহায়ক।


আমড়া

আমড়া খুবই টক মিষ্টি এবং সুস্বাদু একটি ফল। আমড়া কাঁচা খাওয়ার পাশাপাশি রান্না করে খাওয়া হয়। এছাড়াও চাটনি, আচার এবং জেলি করে খাওয়ার ক্ষেত্রে আমড়া খুবই জনপ্রিয়।


আমড়া খাবার হজম হতে সহায়তা করে। তাই হজম সমস্যা দূর করার ক্ষেত্রে আমড়া অতুলনীয়। আমড়ায় ক্যালসিয়াম থাকার কারণে শিশুদের দেহে হাড় সুগঠিত এবং মজবুত হতে সহায়তা করে।


আমড়া ক্যালসিয়ামের খুব ভালো একটি উৎস। আমড়া রক্ত জমাট বাঁধতে সহায়তা করে ভিটামিন সি থাকার কারণে সহজেই অতিরিক্ত রক্তক্ষরণ প্রতিরোধ করে।


এছাড়া দাঁতের মাড়ি থেকে রক্ত পড়া, পুঁজ জমে যাওয়া দাঁতের গোড়া দুর্বল হয়ে যাওয়া সমস্যা সমাধানে আমড়া গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে।


স্ট্রবেরি

স্ট্রবেরি পুষ্টিগুণে ভরপুর একটি ফল। স্ট্রবেরিতে ভিটামিন-সি থাকার পাশাপাশি রয়েছে ভিটামিন এ এবং ই । এছাড়া শরীরের জন্য অনেক গুরুত্বপূর্ণ উপাদান যেমন: ক্যালসিয়াম, এলার্জিক এলাজিক এসিড, ফলিক এসিড সহ আরো অনেক গুরুত্বপূর্ণ উপাদান।


স্ট্রবেরি রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়িয়ে তোলে এবং ঠান্ডা জাতীয় সমস্যার সমাধান করতে সহায়তা করে। এছাড়াও যাদের কাশি আছে তারা নিয়মিত স্ট্রবেরি খেতে পারেন।


আমাদের শরীরে ভিটামিন সি এর চাহিদা প্রায় 150 শতাংশ স্ট্রবেরি পূর্ণ করে। হৃদযন্ত্র ভালো রাখতে স্ট্রবেরির ভূমিকা অপরিসীম। স্ট্রবেরি কোলেস্টেরল নিয়ন্ত্রনে রাখে হবে বড় বড় রোগের ঝুঁকি সহজেই কমে যায়।


স্ট্রবেরি ক্যান্সার প্রতিরোধক হিসেবে দারুন কাজ করে। ক্যান্সারের রোগীরা নিয়মিত স্ট্রবেরি খেলে তাদের ক্যান্সারের প্রভাব অনেকটাই কমে যায়। উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে ক্ষেত্রে স্ট্রবেরি খাওয়া ভালো। স্ট্রবেরি উচ্চ রক্তচাপ হ্রাস করতে সাহায্য করে।


ত্বক ভালো রাখতে স্ট্রবেরি খুব উপকারী। ব্রণ প্রতিরোধ সহ ত্বকের নানা প্রকার সমস্যা দূর পারেন সাহায্য করে।


স্ট্রবেরি চোখের জন্য খুব উপকারী। স্ট্রবেরি চোখের বিভিন্ন জটিল সমস্যা সমাধানে সহায়ক। তাছাড়া স্ট্রবেরি ওজন কমাতে সাহায্য করে। তাদের অতিরিক্ত মেদ ভুড়ি রয়েছে তাদের জন্য স্ট্রবেরি খুবই উপকারী।


লেবু

লেবু প্রচুর ভিটামিন-সি সমৃদ্ধ একটি ফল। লেবু ঠান্ডা লাগা প্রতিরোধ করে এবং যাদের টনসিলের সমস্যা আছে লেবু জন্য অত্যন্ত উপকারী।


এছাড়াও লেবু মস্তিষ্ককে সচল রাখে এবং স্নায়ুতন্ত্রকে সক্রিয় রাখতে সাহায্য করে। লেবু শরীরের অতিরিক্ত ক্ষতিকর চর্বি দূর করতে সাহায্য করে‌। এবং লেবু মেদ কমাতে সাহায্য করে।


লেবু নখের সৌন্দর্য নষ্ট হয়ে গেলে ফিরিয়ে আনতে সাহায্য করে এবং ক্ষয় প্রাপ্ত হওয়া থেকে রক্ষা করে। চুল ভালো রাখতে লেবু খুবই উপকারী এবং হাড় মজবুত ও সুগঠিত করতে লেবুর ভূমিকা অপরিসীম। লেবু আমাদের দেহের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করে।


আঙ্গুর

স্বাস্থ্যের জন্য আঙ্গুর অনেক উপকারী একটি ফল। রসালো এই ফলটি পুষ্টিগুণে ভরপুর। আঙ্গুরের রয়েছে পটাশিয়াম, ম্যাঙ্গানিজ এবং খনিজ উপাদান।


তাছাড়া আঙ্গুরের রয়েছে ভিটামিন বি১, বি৬, ভিটামিন সি এবং ভিটামিন কে।  আঙ্গুর বড় বড় রোগ প্রতিরোধ করতে বিশেষ ভূমিকা পালন করে। যেমন হৃদরোগ, ডায়াবেটিস, অ্যাজমা


আঙ্গুর বার্ধক্য প্রতিরোধে সহায়তাকারী কারণ এর খোসা এবং বীজে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট রয়েছেন। কোষ্ঠকাঠিন্য রোগ প্রতিরোধে আঙ্গুর সহায়তা করে।

আরো পড়ুন….


আঙ্গুরের জুস আমাদের শরীরের জন্য অনেক উপকারী পানীয়। আঙ্গুর কোলেস্টরলের মাত্রা কমায় এবং নিয়ন্ত্রনে রাখে। ফলে বড় ধরনের ক্ষতিকর রোগ হতে আমরা সহজেই রক্ষা পাই।


আঙ্গুর হাড় গঠন ও মজবুত করে কারণ এতে রয়েছে ম্যাঙ্গানিজ সহ অনেক খনিজ পদার্থ। আঙ্গুর আমাদের প্রথম সমস্যা থেকে মুক্তি দেয়। এছাড়াও যাদের মাথাব্যথা সমস্যা এবং স্মৃতিশক্তি দুর্বল তাদের জন্য আঙ্গুর খুবই উপকারী।


বৃদ্ধ বয়সে চোখ ভালো রাখার জন্য আঙ্গুরের ভূমিকা অপরিসীম। আঙ্গুর বয়স জনিত সমস্যা প্রতিরোধ করে এবং চোখ ভালো রাখতে কার্যকরী ভূমিকা পালন করে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *