Festival

ভ্যালেন্টাইন্স ডে কেন পালন করা হয়? দেখে নিন এর ইতিহাস ও উৎস

শীতের কুয়াশামাখা আমেজে ফেব্রুয়ারি মাসের হাত ধরে যেন বয়ে আসছে প্রেমের মাস। বসন্তের ছোঁয়া হাতে লাল টুকটুকে গোলাপ মনে হয় প্রেমের পার্বণ কুয়াশায় উঁকি মারছে। সপ্তাহের শুরুতে রোজ ডে পালাক্রমে প্রোপোজ ডে, চকলেট ডে, টেডি ডে, প্রমিজ ডে, হাগ ডে, কিস ডে, সপ্তাহ জুড়ে অপেক্ষার অবসান ঘটিয়ে অবশেষে আসে ভ্যালেন্টাইন্স ডে যেন টানা এক মনোমুগ্ধকর মুহূর্তের সাক্ষী। ভ্যালেন্টাইন্স ডে কেন পালন করা হয়?
প্রতিবছরই 14 ই ফেব্রুয়ারি পালন করা হয় বিশ্ব ভালোবাসা দিবস এই দিবসে সবাই তাদের প্রিয়জনদের কাছে তাদের ভালোবাসা ও মনের অনুভূতি গুলো জানায়। অনেকে আবার এই ভালোবাসা দিবস টাকে মনে করে থাকেন যে এই দিবসটি শুধু প্রেমিক-প্রেমিকাদের জন্য যা আদৌ সত্যি না কারণ এই দিনে যে কেউ তার আপনজনকে শুভেচ্ছা জানাতে পারে। ভালোবাসা শুধু প্রেমিক প্রেমিকার মধ্যে হয় না ভালোবাসা বাবা-মা ভাই-বোন বন্ধু-বান্ধব সবার জন্যই সমান তাই কাছের মানুষদের অবশ্যই ভ্যালেন্টাইন ডের দিনে শুভেচ্ছা জানাতে পারবে কারণ জীবনে আমরা যাদের বেশি গুরুত্ব দিয়ে থাকি তারাই হচ্ছে আমাদের প্রীয়জন কাছের মানুষ।
প্রতিবছর ধুমধাম করে পালন করা হয় ভ্যালেন্টাইন্স ডে কিন্তু অনেকেই জানেন না ভ্যালেন্টাইন্স ডে এর ইতিহাস কি কেন সবাই এই দিনে ভ্যালেন্টাইন্স ডে পালন করে কবে থেকে শুরু হয়েছিল এই ভ্যালেন্টাইন্স ডে আমরা আমাদের এই নিবন্ধে এই বিষয়গুলো নিয়ে কিছু তথ্য জানাবো তাহলে চলুন বন্ধুরা জেনে নেওয়া যাক ভ্যালেন্টাইনস ডে গোপন রহস্য গুলো।

ভ্যালেন্টাইন্স ডে এর উৎস

পোপ গিলাসিয়াস পঞ্চম শতাব্দীর শেষের দিকে সবার প্রিয় ও ভালোবাসার অকৃত্রিম বন্ধু সেন্ট ভ্যালেন্টাইনের নামে 14 ই ফেব্রুয়ারি ভ্যালেন্টাইন্স ডে অর্থাৎ ভালোবাসা দিবস বলে ঘোষণা দিয়েছিলেন।

ভ্যালেন্টাইন্স ডে এর ইতিহাস

অনেক পুরনো ইতিহাসের পাতা উলটে দেখলেই চোখে পড়বে তৃতীয় শতাব্দীর সময় রোমের বাসিন্দা, চিকিৎসকগণ পুরোহিত এবং আরো অনেকেই সেন্ট ভ্যালেন্টাইনের আত্মত্যাগের কথা স্মরণ করে এ দিনটিকে ধুমধাম করে উদযাপন করতেন। সেন্ট ভ্যালেন্টাইন ছিলেন একজন ধর্ম প্রচারক এছাড়াও তিনি রোমান সৈন্যদের বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ করার জন্য বিয়ের আয়োজন করে দিতেন। তৎকালীন আমলে দ্বিতীয় ক্লডিয়াস ছিলেন রোমানদের সম্রাট তার ধারণা মতে অবিবাহিত সৈন্যরা বিবাহিত সৈন্য বাহিনীর চেয়ে অনেক বেশি দক্ষ। তাই তিনি সৈন্যবাহিনীতে থাকা যুবকদের বিয়ে নিষিদ্ধ ঘোষণা করে আইন জারি করেছিলেন।
ভ্যালেন্টাইন্স ডে কেন পালন করা হয়
পরবর্তীতে যখন সেন্ট ভ্যালেন্টাইন এই আইনের কথা জানতে পারেন তিনি মনে করেন যে এটা সৈন্যদের সাথে অন্যায় করা হচ্ছে তাই তিনি যেসকল সৈন্যরা বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হতে চান তাদেরকে গোপনে সবার আড়ালে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ করতে সহায়তা করতেন এবং মানুষের মনে ভালোবাসা জাগিয়ে তোলার চেষ্টা করেন। তবে সেন্ট ভ্যালেন্টাইনের এ গোপন শতা বেশিদিন দ্বিতীয় ক্লডিয়াস নিকট টিকে থাকতে পারেনি তার এই কাজের জন্য দ্বিতীয় ক্লাডিয়াস তাকে মৃত্যুদণ্ড সাজা প্রদান করেন তার এই আত্ম বলিদান ভালবাসার প্রতি এ অমুক প্রতিদান বলে জ্ঞানী মানুষ গন মনে করতেন। সেখানকার মানুষ সেন্ট ভ্যালেন্টাইন এর মানুষের প্রতি ভালোবাসার এই আত্মত্যাগকে এক একটা দিন সবাই মিলে উদযাপন করে সেন্ট ভ্যালেন্টাইন এর নামে উৎসর্গ করেন।

ভ্যালেন্টাইন্স ডে এর এস‌এম‌এস

মিষ্টি চাঁদের মিষ্টি আলো বাসি তোমায় অনেক ভাল।
মিটিমিটি তারার মেলা, দেখবো তোমায় সারা বেলা।
নিশি রাতে শান্ত ভুবন , রাখবো তোমায় সারা জীবন!!
মনেতে আকাশ হয়ে রয়েছো ছড়িয়ে বলোনা কোথায় রাখি তোমায় লুকিয়ে।।
থাকি যে বিভোর হয়ে স্বয়নে স্বপনে যেওনা হৃদয় থেকে দূরে হারিয়ে আমি যে ভালোবাসি শুধু তোমাকে।।
খুজে দেখো মনের মাঝে, আমি আছি তোমার স্বপ্নের সাঁজে, তুমি ভেসে যাও আমার হৃদয় জুড়ে অনুভুতির সাগরে, সারা জীবন এভাবেই ভালোবাসে যাব।
কে তুমি? কেন তোমায় আমি খুজি?
কেন তোমায় আমি কল্পনার সাগরে দেখতে পাই?
কেন তোমায় আমি অনুভব করি? কেন তোমায় আমি চাই?
জানি না, কিছু জানি না, শুধু জানি আমি তোমায় ভালোবাসি।
অন্যের জন্যে নিজেকে বাঁচিয়ে রেখে নিজেকে নিজে অল্প অল্প করে শেষ করার নামই হলো ভালোবাসা।”
ভালোবাসা নীল আকাশের মত সত্য শিশির ভেজা ঘাসের মত পবিত্র কিন্তু সময়ের কাছে আমি পরাজিত বাস্তবতার কাছে অবহেলিত তবুও বলব আমি তোমায় ভালোবাসি।

Leave a Reply

Your email address will not be published.