ফিটনেসব্যায়ামযোগ ব্যায়ামসুস্বাস্থ্য

যোগ ব্যায়াম করলে যেসব বিষয় অবশ্যই সর্তকতা থাকতে হবে

যোগ ব্যায়াম আমাদের সুস্থ থাকার জন্য কতটা গুরুত্বপূর্ণ তা আমরা প্রায় সবাই জানি। যোগব্যায়াম শুধু শরীরকে সুস্থ এবং ভালো রাখে না বরং অনেক ধরনের মারাত্মক রোগ থেকে সহজেই মুক্তি দেয়। বিভিন্ন রোগ থেকে মুক্তি দেয়ার পাশাপাশি অনেক জটিল রোগ এর ঝুঁকি কমিয়ে দেয়।

যোগ ব্যায়াম করলে যেসব বিষয় অবশ্যই সর্তকতা থাকতে হবে
যোগ ব্যায়াম করলে যেসব বিষয় অবশ্যই সর্তকতা থাকতে হবে

তাই যোগ ব্যায়াম করা আমাদের জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। তবে যোগ ব্যায়াম করলে অবশ্যই কিছু ব্যাপারে সর্তকতা অবলম্বন করতে হবে। কারণ ভিন্ন সময়ে যোগ ব্যায়াম অনুশীলণ করার নিষেধাজ্ঞা রয়েছে। তবে তেমন কোনো জটিল বিষয় নয়। যেমন বিশেষ করে যদি আপনার কখনো শরীর খারাপ থাকে।

অথবা আপনি খুব মোটা বা মেদবহুল। আপনি যোগ ব্যায়ামের আসন গুলো সঠিক ভাবে অনুসরণ করতে পারছেন না।এরকম বিশেষ পরিস্থিতিতে যোগ ব্যায়াম না করাটাই উত্তম। তবে শারীরিক অবস্থা স্বাভাবিক প্রয়োজন আসলে পুনরায় যোগ ব্যায়াম অনুশীলন করা যেতে পারে।

আরো পড়ুন….


যোগ ব্যায়ামের বয়স

যোগ ব্যায়াম করার বয়স নিয়ে অনেকেরই দুশ্চিন্তায় রয়েছে। যে আসলে কত বছর থেকে যোগ ব্যায়াম শুরু করা যায়। অথবা বৃদ্ধ বয়সে যোগ ব্যায়াম অনুশীলন করা যাবে কিনা।

তবে এক্ষেত্রে দুশ্চিন্তার কোনো কারণ নেই, কারণ পাঁচ থেকে ছয় বছর বয়স হলে যোগ ব্যায়াম অনুশীলন করা যায়। তবে এক্ষেত্রে অবশ্যই কম বয়সের শিশুদের সহজ যোগ ব্যায়ামের আসন গুলো অনুসরণ করতে হবে।


কিন্তু পর্যায় ক্রমে বয়স বাড়ার সাথে সাথে অবশ্যই কঠিন আসনগুলো অনুসরণ করা যাবে। আর বৃদ্ধ বয়সেও যোগ ব্যায়াম অনুশীলণ করা যায়। এক্ষেত্রে বৃদ্ধ বয়সের মানুষের জন্য যোগ ব্যায়াম করায় হয় কোন প্রকার ক্ষতি নেই।

উল্টো বৃদ্ধ বয়সে যোগাসন অনুশীলন করলে কিছুটা হলেও সুস্থ থাকা সম্ভব হয়। তবে এ ক্ষেত্রে সতর্ক থাকা ভালো যে কোন কঠিন আসন অনুশীলন না করাটাই উত্তম। সুস্থ থাকার জন্য সব বয়সের মানুষের উচিত নিয়মিত যোগ ব্যায়ামের বিভিন্ন আসন চর্চা করা।

যোগ ব্যায়ামের জন্য শারীরিক অবস্থা

যোগ ব্যায়াম করার জন্য অবশ্যই শারীরিক অবস্থা ভালো থাকা দরকার। বিশেষ করে যাদের উচ্চ রক্তচাপ রয়েছে তাদের অবশ্যই বেশি সচেতন থাকা উচিত।

এক্ষেত্রে উচ্চ রক্তচাপের রোগীরা আলাদা কিছু যোগ ব্যায়ামের আসন বেছে নিতে পারে যা তাদের শরীরের জন্য মানানসই।তাছাড়াও যাদের হৃদরোগের সমস্যা আছে অথবা হৃদপিণ্ড দুর্বল তাদের কিছুটা সচেতন থাকা দরকার।


তবে যাদের শারীরিক ভাবে বিভিন্ন ধরনের সমস্যা রয়েছে। তাদের যোগব্যায়ামের আসন গুলো প্রথমে বিবেচনা করে নেয়া দরকার। যে তাদের স্বাস্থ্যের জন্য এই আসন গুলো মানানসই কিনা এক্ষেত্রে সর্তকতা অবলম্বন করা উচিত।

বিশেষ করে উচ্চ রক্তচাপের রোগীরা এমন কিছু আসন বেছে নিতে পারে। যা তাদের উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে এবং শারীরিক অবস্থা ভালো রাখতে সাহায্য করবে।


আবার হৃদযন্ত্র দুর্বল তারা এমন কিছু যোগাসন অনুশীলন করতে পারে যা তাদের হৃদপিণ্ড ভালো রাখতে সাহায্য করে এবং শারীরিক ভাবে অনেকটাই সুস্থ অনুভব করতে পারবে।

যোগ ব্যায়ামের জন্য ধৈর্য

একদম ই ঠিক যোগ ব্যায়াম এর আসল গুলো অনুশীলন করার জন্য অবশ্যই ধৈর্যের প্রয়োজন। এক্ষেত্রে ধৈর্য দুই রকম হতে পারে প্রথমত, যে যোগ ব্যায়ামের আসন গুলো অনুশীলন করতে একটু সময় লাগে। তাই ধৈর্য ধরে যোগ ব্যায়ামের প্রত্যেকটি আসন 30 সেকেন্ডে এক মিনিট ধরে করার ধৈর্যটা বেশির ভাগ লোকেরই থাকে না।

আর দ্বিতীয়ত, অনেকেই আছে যারা বিভিন্ন রকমের জটিল রোগ থেকে মুক্তি পেতে বা নিয়ন্ত্রণে রাখার জন্য যোগ ব্যায়াম অনুশীলণ করে। তারা শুরুতে অল্প কিছুদিন যোগ ব্যায়াম চর্চা করার পর শুধু খুঁজতে থাকে তাদের কোনো উন্নতি হয়েছে কিনা।


যদি কোনো উন্নতি কিছু দিনের ভিতরে লক্ষ করা না যায়। তাহলে এক সময় তারা যোগ ব্যায়াম অনুশীলণ করা ছেড়ে দেয়।তবে এক্ষেত্রে অবশ্যই ধৈর্য ধারণ করতে হবে। কারণ যোগ ব্যায়াম নিয়মিত অনুশীলন না করলে কখনোই ভালো ফল সম্ভব না।

তাই সঠিক ফলাফল পেতে অবশ্যই ধৈর্য ধারণ করুন এবং দীর্ঘদিন যোগ ব্যায়াম চর্চা করতে থাকুন অবশ্যই অনেক উন্নতি লক্ষ্য করতে পারবেন।

যোগ ব্যায়ামের জন্য শ্বাস-প্রশ্বাস

যোগ ব্যায়াম অনুশীলণ করার সময় অবশ্যই শ্বাস-প্রশ্বাস সঠিক নিয়মে নিতে হবে। কারণ যোগ ব্যায়াম অনুশীলনের সময় যদি আপনি সঠিক ভাবে শ্বাস প্রশাস নিতে ত্রুটি করেন তাহলে আপনার মারাত্মক ক্ষতি হতে পারে। এজন্য যে আসনটি অনুসরণ করেন না কেন অবশ্যই এই আসনটি সম্পর্কে ভালোভাবে জেনে নিন।


যে আসনটিতে কি বলা আছে এবং এটি কিভাবে করতে হবে এসব নিয়ে বিস্তারিত অবশ্যই জানা প্রয়োজন। এবং দ্রুত নিঃশ্বাস-প্রশ্বাস নেওয়া তো একদমই উচিত নয়। সবচেয়ে ভালো হয় আপনি যে আসনটি অনুসরণ করবেন ওই আসনটি সম্পর্কে সঠিক তথ্য জেনে নেওয়া।

কারণ বিভিন্ন যোগ ব্যায়ামের আসন এর বিভিন্ন নিয়ম থাকতে পারে। তবে অবশ্যই আপনাকে যোগ ব্যায়ামের আসন গুলোর সঠিক নিয়ম অনুসরণ করতে হবে।

অতিরিক্ত যোগ ব্যায়াম অনুশীলণ

আমরা সবাই জানি অতিরিক্ত কোনকিছু একদমই ভালো নয়। যোগ ব্যায়াম অনুশীলন করার ক্ষেত্রে এই ব্যাপারটি লক্ষ্য রাখতে হবে। যেন দ্রুত বেশি ফলাফল পেতে কখনোই অতিরিক্ত যোগাসন অনুশীলন করা না হয়।

যে যোগাসন যেরকম অনুশীলন করার পদ্ধতি বলা আছে ঠিক ঐ ভাবে অনুসরণ করা উচিত। যেমন একটি আসন দুইবার অথবা তিনবার অনুশীলন করার পদ্ধতি থাকতে পারে। তবে এ ক্ষেত্রে বারবার অনুশীলন করা উচিত নয়।

কারণ অতিরিক্ত অনুশীলন আপনার শরীরের উপরে খারাপ প্রভাব পড়তে পারে। কিন্তু দীর্ঘ সময় ধরে অনুশীলন করার ফলে শরীরের সহ্য করার ক্ষমতা হয়। কিন্তু শুরুতেই অতিরিক্ত অনুশীলন শরীরের জন্য কিছুটা ক্ষতিকারক।

যোগ ব্যায়ামের জন্য মানসিকতা

যোগ ব্যায়াম অনুশীলণ করার জন্য অবশ্যই দৃঢ় মনোবল এবং নিজের প্রতি আত্মবিশ্বাস রাখতে হবে। কারণ আপনি ভেতর থেকে অলস থাকলে বাহিরে থাকে অলসতা দূর করতে পারবেন না।

যোগ ব্যায়াম অনুশীলণ করতে হবে অবশ্যই যোগ ব্যায়াম করার জন্য স্থির মানসিকতা থাকা প্রয়োজন। যদি আপনার প্রবল ইচ্ছাশক্তি থাকে তাহলে কোন বাধাই আপনাকে আটকাতে পারবেনা। তাহলে আপনি সব রকমের অলসতা এবং বাধা দূর করে নিয়মিত যোগ ব্যায়াম অনুশীলণ করতে পারবেন।


কিন্তু কখনো ভুল করেও এই রকম মানসিকতা রাখবেন না। যে আজ একটু বিশ্রাম করি বা কিছুটা সময় ঘুমিয়ে নি আগামী কাল যোগ ব্যায়াম অনুশীলণ করব। অথবা আজকে কেমন যেন ভালো লাগছে না আজকে একদম মুড নেই বা ইচ্ছে নেই।

এরকম হলে আস্তে আস্তে আপনি এতটা অলস হয়ে পড়বেন যে যোগ ব্যায়াম অনুশীলণ করা এক সময় একেবারেই ছেড়ে দেবেন। তাই প্রতিদিন কিছুটা সময় হলেও যোগ ব্যায়াম অনুশীলণ করুন।


তাতে একটু কষ্ট হলে হোক সেটা সহজ ভাবে মেনে নিতে প্রস্তুত থাকুন। এই কিছুটা সময় একটু কষ্ট আপনার স্বাস্থ্য এবং মনের জন্য কতটা উপকারী হবে তা আপনি নিজেই অন্য একটা সময় লক্ষ করতে পারবেন।

এজন্য অলসতা ভিতরে কখনোই আসতে দিবেন না। কারণ অলসতা একবার মানুষের ভিতরে প্রবেশ করলে সেটা দূর করার জন্য অনেক পরিশ্রম করতে হয়।

আরো পড়ুন….


অনেকের ক্ষেত্রে অসম্ভব হয়ে পড়ে। কারণ তারা অলসতা দূর করতে তোকে কিন্তু আজ নয় কাল নয় পরশু এরকম করে অলসতা কখনোই দূর করতে পারে না।

তাই অলসতা যাতে আমাদের ভিতরে প্রবেশ করতে না পারে তাই আমাদের অবশ্যই সর্বদা সতর্ক থাকতে হবে। পরিশেষে বলব আপনারা শারীরিক-মানসিক ভাবে সুস্থ থাকার জন্য অবশ্যই নিয়মিত যোগ ব্যায়াম অনুশীলণ করুন।


যোগ ব্যায়াম অনুশীলণ করার ক্ষেত্রে কখনোই কোনভাবে অলসতা করবেন না। কারণ অলসতা আপনি একবার ভিতরে আনতে পারবেন কিন্তু এটাকে সহজে দূর করতে পারবেন না।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *